ব্রিলিয়ান্ট অ্যাপ এর রেজিস্টেশন, সুবিধা এবং অসুবিধা বিস্তারিত তথ্য

brilliant app registration process

ব্রিলিয়ান্ট অ্যাপ হলো এমন একটি অ্যাপ যেটির সাহায্যে খুবি কম রেটে মাত্র ৩৪ পয়সা কল রেটে যে কোনো লোকাল নাম্বারে কথা বলতে পারবেন এবং আপনি চাইলে নিজের নাম্বার হাইড করেও কথাবলতে পারবেন পূথিবীর যে কোনো প্রান্ত থেকে এবং সেটাও আবার যেকোনো নাম্বারে।

এ ব্লগে আমরা ব্রিলিয়ান অ্যাপ সম্পর্কিত সকল খুটিনাটি ব্যাখ্যা দেওয়ার চেস্টা করবো।

ব্রিলিয়ান্ট অ্যাপ এ কিভাবে একেবারে কোনো ঝামেলা ছারা একদম সঠিক পদ্বতি আবলম্বন করে নিজের নেশনাল আইডি কার্ড দিয়ে করে রেজিস্টেশন করবেন এবং এটা ব্যবহার করা কালিন কী কী সুবিধা আপনি পেয়ে থাকবেন আর কী কী অসুবিধার সম্মুখীন হতে পারেন এবং সেগুলো কীভাবে সমাধান করবেন তা সম্পর্কে জানার ক্ষেত্রে আপনার জন্য এ ব্লগটিই যথেষ্ঠ ।

প্রথমেই আমরা ব্রিলিয়ান কনেক্ট আপটির রেজিস্টেশন পদ্বতি নিয়ে কথা বলবো,

Table of Contents

ব্রিলিয়ান্ট অ্যাপ এর রেজিস্টেশন পদ্ধতি

অবশ্য অ্যাপটি আর আগের মতো নেই, এর মধ্যে এখন নতুন কিছু ফিচার দিয়ে দেওয়া হয়েছে। এ কথা বলার কারণ হলো আগে এতে রেজিস্টেশন করাটা সহজ ছিল। শুধু ইমেইল এবং ইউজার নাম দিয়ে রেজিস্টেশন করা যেত। কিন্তু বর্তমানে আপনাকে রেজিস্টেশন করার জন্য জাতীয় পরিচয় পত্র দিতে হবে।

অ্যাপটি আপনি চাইলে গুগল প্লে স্টেরথেকে ডাউনলোড করে নিতে পারবেন। এখন আপনি যদি এটা না জানেন তবে আমাদের লেখা ব্লগ গুগল প্লে স্টোর থেকে অ্যাপ ডাউনলোড করবেন সেটি পড়ে নিতে পারেন। তাছারা আপনারা যদি গুগলে একাউন্ট খোলার ঝামেলাতে না পরতে চান তবে নাইন অ্যাপ ব্যবহার করতে পারেন।

কারণ নাইন অ্যাপস এমন এক অসাধারণ অ্যাপ যাতে কোনোপ্রকার ইউজার একাউন্ট খোলার প্রয়োজন হয় ন। এবং নাইন অ্যাপস এর একটি ওয়েব ভার্সন আছে যেটি ডাউনলোড না করেও একেবারে নাইন নাইন অ্যাপস অ্যাপ এর মতো ব্যবহার কারা যায়। আর নাইন অ্যাপস সম্পর্কিত আরও কিছু জানার থাকলে আমাদের নাইন অ্যাপন সম্পর্কিত ব্লগটি পড়ে জেনে নিতে পারেন।

আর আপনি চাইলে তাদের অফিসিয়াল পেজ থেকেও ডাউনলোড করে নিতে পারবেন তবে এ পেজটি আপনাকে সে ঘুুরিয়ে গুগল প্লে স্টোরেই নিয়ে যাবে।

brilliant download page

অ্যাপটির অফিসিয়াল পেজটি এমন দেখাবে আপনারা ডাউলোডে ক্লিক করে অ্যাপটি আপনাদের ‍এন্ড্রয়েড ডিভাইসে নামিয়ে নিবেন।

তারপর অ্যাপটি ওপেন করবেন এবং এতে দেখানো সকল তথ্য স্কিপ করে দিয়ে স্টার্ট বাটনে ক্লিক করে অ্যাপটির ভিতরে চলে যাবেন।

brilliant number

এর পর আপনার কান্টি কোড দিয়ে আপনার ফোন নাম্বারটি এন্টি করে দিয়ে কন্টিনিউ দিয়ে দিবেন। ঠিক এ কিছু সময় পর আপনার নাম্বারে একটা ৪ ডিজিটের কোড চলে যাবে এবং সেটা আপনি এই অ্যাপে বসিয়ে দিবেন।

এর পরেই ওরা আপনার ফাস্ট নেইম আর লাস্ট নেইম আপ পিক চাইবে। আপনি সেটি ‍ফিলআপ করে দিবেন। অবশ্য আপনি চাইলে এ অংশ স্কিপ করে দিতে পারবেন।

সব ধাপ শেস করার পর তারা আপনাকে আপনার প্রফাইল হোমপেইজে নিয়ে যাবে।

প্রোফাইল পেইজে আপনি যখনি মাই ব্যালেন্স এ ক্লিক করবেন সাথে সাথে তারা আপনাকে এমন একটি ম্যাসেজ দেখাবে।

brilliant-app-balance-error

যার মানে এখনও আপনার আরও অনেকটা কাজ বাকি আছে।

এবার আপনি আপনার প্রফাইল ফটোটে ক্লিক করে ডকুমেন্ট আপডেটের অপশনে চলে যাবেন।

brilliant-app-documents-submit-page-1

এখান থেকে Add Document ক্লিক করে চলে জাবে ডকুমেন্ট আপলোড করার এই পেইজে।

brilliant-app-nid-submit-page

যেখানে টাইটেল বলতে আপনার নাম এর শুরুর অংশ

brilliant-app-id-submit

আবশ্য নিজের জাতীয় পরিচয় পত্রের সামনের ছবি আর পেছনের ছবি আগে থেকেই রেখে দিতে হবে নিজের ফোন ফোল্ডারে।

আর এর সাথেই শেষ হয় ব্রিলিয়েন্ট অ্যাপ রেজিস্টেশন।

এখন কথা বলবো ব্রিলিয়ান অ্যাপ এর রিচার্জ করা নিয়ে। এ অ্যাপটিটে বিকাশ ব্যবহার করে রিচার্জ করা যায়।

ব্রিলিয়ান্ট অ্যাপ এর রিচার্জ করার পদ্বতি

এ ক্ষেত্রে বিকশ থেকে রিচার্জ করার পদ্বতিতা খুবি সহজ

প্রথমত *247# এ কোডটি ডায়েল করে বিকাশে ডুকবে

brilliant-app-bkash-top-up-1

এর পর সেখান থেকে পেমেন্ট অপশনটি বাছাই করে নিবে

brilliant-app-bkash-top-up-2

তার পর ম্যারচেন্ট নাম্বারের জায়গায় তাদের দেওয়া নাম্বারটা বসিয়ে দিবেন।

brilliant-app-bkash-top-up-3

এর পর টাকার পরিমান বসাবে, যত টাকা রিচার্জ করতে চান ততো। তবে মনে রাখবেন যে ২০ টাকার কম রিচার্জ করতে চাইলে এক্সটা চার্জ কাটবে। তাই সবসময় ২০ টাকার উপরে থাকার চেষ্টা করবেন।

brilliant-app-bkash-top-up-4

টাকার এমাউন্ট বসানোর পরে রেফারেন্স দেওয়ার ঘড়ে আপনি তাদের দেওয়া এগারো ডিজিটের নাম্বরটি বসাবেন এবং কাউন্টার নাম্বার এক দিয়ে আপনার বিকাশ পিন বসিয়ে সেন্ড করে দিবেন।

সেন্ড করার সাথে সাথে আপনি একটি টি আর এক্স আইডি পাবেন। এটি আপসি ব্রিলিয়ান কন্টাক্টে সেন্ড করবেন আপনার ট্রান্জেক্সনের প্রমাণ হিসেবে। আর এর মাধ্যমে শেষ হলো রিচাজ পদ্বতি।

এর আগে আমরা এটি ব্যবহারর সুবিধা অসুবিধাতে যাই আমরা এর কাস্টমার সাপোর্ট নিয়ে আলোচনা করব।

ব্রিলিয়ান্ট অ্যাপের হেল্পলাইন বা কাস্টমার সাপোর্ট

হেল্পলাইন ডিটেইল নিচে লেখে দিলাম

তাদের সরাসরি যোগাযোগর ঠিকানা

House No. Ga-30/G, Pragati Sarani
Shahjadpur, Gulshan 2,
Dhaka – 1212,
Bangladesh.

তাদের সাথে যোগাযোগের ফ্যাক্স নাম্বার +৮৮০ ৯৬৩৮ ৩৮৩৮৮৩৮ তাদের ফোন নাম্বার +৮৮০ ২৮৮৯৯৬৫৪ এবং তাদের ইমেইল info@brilliant.com.bd

ব্রিলিয়ান্ট অ্যাপের সুবিধা

প্রতি অ্যাপের কিছু সুবিধা এবং অসুবিধা থাকবে সেটা যত ভালো অ্যাপেই হোক না কেন। আপনাকে কোন কোম্পানি তাদের অ্যাপ ব্যবহারের জন্য ফোর্স করে না। তাই আপনি আপনার সুবিধা অনুযায়ি তাদের অ্যাপ ব্যবহার করতে পারবেন। প্রতিটি কোম্পানি চেষ্টা করে থাকে তাদের গ্রাহকে পর্যন্ত সুবিধা দেওয়া তার পরেও কিছু সীমাবদ্ধতা থাকবেই।

  • ব্রিলিয়ান্ট অ্যাপ দিয়ে যে কোন নাম্বরে ৩৫ পয়সা কল রেটে কথা বলা যাবে।
  • ব্রিলিয়ান্ট অ্যাপ টু অ্যাপ ভয়েস কল সম্পূর্ণ ভাবে ফ্রি।
  • বিকাশ, রকেট, মাস্টার কার্ড, ভিসা, ম্যানি এক্সপ্রেস দিয়ে ব্রিলিয়ান্ট অ্যাপে রিচার্জ কারা যায়।
  • নিজের মোবাইল নাম্বার হাইড রেখে ফোন করা যায়।
  • অ্যাপের সাহায্যে খুব সহজে ভয়েস এবং ভিডিও কল রেকর্ড করা যায়। এবং রেকর্ড করা অডিও এবং ভিডিও এক ফোন থেকে অন্য ফোনে সেন্ড করা যাবে।
  • নিদিষ্ট সংখ্যা ওয়ার্ডের মধ্যে এস এম এস সেন্ড করতে পারবেন সম্পূর্ণ ফ্রি। ওয়ার্ডের সংখ্যা বেশি হলে মিনিমাম চার্জ করা হবে।
  • আপনি আপনার পছন্দের বন্ধুদের নিয়ে গ্রুপ তৈরি করে ফ্রি চার্ট করতে পারবেন। এবং গ্রুপ চার্ট করার সময় ভিডিও এবং অডিও ক্লিপ শেয়ার করা যাবে।
  • আপনার ভিডিও, ফটো, শেয়ার করতে পারবেন জয়েনকৃত গ্রুপ গুলোতে। এবং এই অ্যাপে কিছু স্টিকার আছে যার সাহায্যে আপনি আপনার বিশেষ মোমেন্ট গুলো প্রকাশ করতে পারবেন।
  • ব্রিলিয়ান্ট অ্যাপের সাহায্যে খুব সহজে নিজের স্থান অন্যের সাথে শেয়ার করা যায়।
  • এবং সর্বশেষ ব্রিলিয়ান্ট অ্যাপের সিকিউরিটি অন্য একই ধরনের অ্যাপের থেকে অনেকটাই ভালো।

ব্রিলিয়ান্ট অ্যাপের অসুবিধা

আমি কিছু ক্ষন আগে বলেছি প্রতিটি অ্যাপের কিছু সুবিধা এবং অসুবিধা আছে। এবং প্রতিটি অ্যাপের সেই দিকটা বিবেচনা করে সিদ্ধান্ত নেওয়ার দ্বাতীয় আপনার।

  • পেইড ভার্সনে সুবিধা বেশি, ফ্রি ভার্সনে তত বেশি সুবিধা পাবেন না।
  • অ্যাপে একবারে নতুন কোন ফিচার নেই। সাধারনত সামাজিক অ্যাপ গুলোতে যে সকল ফিচার ঠিক সেই সকল ফিচারে আপনি পাবেন ব্রিলিয়ান্ট অ্যাপে।
  • ২০ টাকার নিচে রিচার্জ করা যায় না।
  • যেহেতু অ্যাপ ভিত্তিক সার্ভিস সুতরাং ব্যবহারের জন্য ইন্টারনেট কানেকশন থাকাতেই হবে। আপনি অফলাইনে কোন কিছু করতে পারবেন না।
  • এই অ্যাপটি শহর এলাকার বিষয় গুলো মাথায় রেখে তৈরি করা হয়েছে। প্রান্তিক জনগোষ্টির জন্য অ্যাপটি কোন কাজে আসবে না।
  • জাতীয় পরিচয় পত্র প্রদান করাটা অনেকই অসুবিধা মনে করে থাকে। এবং ব্রিলিয়ান্ট অ্যাপ কতৃপক্ষ গ্রহন করা জাতীয় পরিচয় পত্র তাদের সার্ভারের কত দিন রাখবে সেই বিষয় সুনিদিষ্ট কোন দিক নির্দশনা নেই।
  • অ্যাপটি বিষয় খুব কম সংখ্যা মানুষ পরিচিত হওয়ায় তেমন একটি সুবিধা পাওয়া যায় না। কারন অ্যাপটির সকল সুবিধা পেতে গেলে অ্যাপটি সকলের কাছে থাকা জরুরি।

নোট: আমি যে সকল অসুবিধার কথা উল্লখ্য করেছি তা সম্পূর্ণ ভাবে আমার ব্যক্তিগত মতামত। সুতরাং আপনি আপনার সিদ্ধান্ত অনুযায়ি কাজ করবেন। এবং এই অ্যাপনি ব্যবহারের ফলে আপনি কোন অসুবিধায় পড়লে, ব্লগ কৃত পক্ষ কোনভাবেই দ্বায়ভার গ্রহন করবেন না।

গুগল প্লে স্টোর থেকে অ্যাপস কিভাবে ডাইনলোড করবেন

অফিসিয়াল ভিটমেট অ্যাপস

আমি কী করে ব্রিলিয়ান্ট কনেক্ট সমস্যার সাহাজ্য পেতে পারি?

ব্রিলিয়ান্ট অ্যাপ এর সমস্যার সমাধানের জন্য আপনি ব্রিলিয়ান্ট অ্যাপ এর অফিসিয়াল সাইটে যোগাযোগ করতে পারেন। তাদের সাথে যোগাযোগের নাম্বার এবং ইমেল ব্রিলিয়ান্ট হেল্পলাইনে আমি উল্লেখ করেছি। আপনি সেখানথেকে দেখে নিতে পারেন।

ব্রিলিয়ান্ট অ্যাপ এর জাতিয় পরিচয় পত্র কোথা থেকে যোগ করবো?

ব্রিলিয়ান্ট অ্যাপ এ জাতিয় পরিচয় পত্র যোগ করার জন্য আপনাকে প্রফাইল ফটোটে ক্লিক করতে হবে এবং সেখানে আপনি পেয়ে যাবেন ডকুমেন্ট সাবমিশন অপশন । এ অপশন থেকেই আপনি আপনার জাতিয় পরিচয় পত্র জমা কারবেন। আরও ডিটেইলে জানার জন্য আমাদের ব্রিলিয়ান্ট অ্যাপ রেজিস্টেশন এরউপর আলোচনাটা পড়তে পারেন।

ব্রিলিয়ান্ট অ্যাপ এ আমার জাতিয় পরিচয়পত্র দেওয়াটা কি ঠিক হবে?

ব্রিলিয়ান্ট অ্যাপ এ আপনার জাতিয় পরিচয় পত্র দেওয়া ঠিক হবে কার ব্রিলিয়ান্ট অ্যাপ একটি বিশ্ব খ্যাত অ্যাপ যার অসংখ ইউজার। এটা কোনো থার্ডপার্টি অ্যাপ না।

ব্রিলিয়ান্ট অ্যাপ এ আপডেটে কী আমার সব ডাটা হারিয়ে যাবে

এটা সঠিক ভাবে আমি বলতে পারবো না তবে আপনি আপনার পুরানে ভার্সন ডিলিট করে নতুন ভার্সন ডাউনলোড করে নিতে পারেন। এবং তার পর লগ ইন কনরনিতে পারেন। আর কোনো সমস্যা হলে ব্রিলিয়ান্ট অ্যাপ এর হেল্প লাইন এর সাহায্য নিতে পারেন।

ব্রিলিয়ান্ট অ্যাপ এ কী যেকোনো সিম ব্যবহার করাটা ঠিক হবে

ব্রিলিয়ান্ট অ্যাপ এ আপনি যে কোনো সিম ব্যবহার করতে পারবেন।

ব্রিলিয়ান্ট অ্যাপ কী ডাটা ছারা ব্যবহার সম্ভব?

না আপনাকে ব্রিলিয়ান্ট অ্যাপ ব্যবহার করার জন্য ডাটা ব্যবহার করতে হবে।

ব্রিলিয়ান্ট অ্যাপ এ কলরেট কত বর্তমানে কত হয়েছে?

ব্রিলিয়ান্ট অ্যাপ এর কলরেট বর্তমানে ৩৪ পয়সা প্রতি মিনিট।

নতুন ডিভাইসে ব্রিলিয়ান্ট অ্যাপ লগইন করতে পারছি বুঝতে পারছি না কী হয়েছে?

এরকম টেকনিক্যাল সমস্যার জন্য আপনি ব্রিলিয়ান্ট অ্যাপ এর অফিসিয়াল সাইটে গিয়ে তাদের সাথে যোগাযোগ করুন কার এ সমস্যাটা হয়ে থাকে সাধারণত ফেক ইউজারদের জন্য। যাতে করে আপনার তথ্য আন্য কেউ ব্যবহার করতে না পারে।

Featured