অ্যাডসেন্স থেকে টাকা ইনকাম করুন সহজেই

make money

অ্যাডসেন্স থেকে দুটি পদ্বতিতে টাকা ইনকাম করা যায়। একটা হলো ইউটিইব আরেকটি হলো ওয়েবসাইট। অ্যাডসেন্স থেকে কী ভাবে খুব সহজে ইনকাম করবেন আর টাকা ব্যাংকে নিয়ে নিবেন সেটা আজ বলবো।

যেমনটা বলেছি অ্যাডসেন্স থেকে টাকা দুটি পদ্বতিতে ইনকাম করা যায় যার মধ্যে একটি হলো ইউটিউব আরেকটি হলো ওয়েবসাইট।

আর আপনারা সবাই জানে বা শুনেছেন ইউটিউবে থেকে টাকা ইনকাম করাটা তুলনামূলক ভাবে গুগলের আর যে কোনো উৎস থেকে ইনকাম করার চেয়ে সহজ। কিন্তু আপনি চাইলে একটি ওয়েবসাইট থেকে ইউটিউবের সমান ইনকাম করে নিতে পারবেন।

আজ আমি আমার এ লেখাটিতে আপনাদের সাথে শেয়ার করবো, আপনারা কী ভাবে অ্যাডসেন্স থেকে একটি ওয়েবসাইটের মাধ্যমে ইনকাম করবেন।

আর ইনকাম করার পর সে টাকা আপনা ব্যাংক একাউন্টে নিয়ে নিতে পারবেন।

ওয়েবসাইট দিয়ে অ্যাডসেন্স থেকে টাকা ইনকাম

যে যত যাই বলুক আমার মতে ওয়েবসাইট দিয়ে টাকা ইনকাম করাটা তুলনা মূলক ভাবে সহজ আমি মনে করি। কারণ এতে আপনাকে কোনো প্রকার এডিট করতে হয় না বা আপনাকে কিছু করে দেখাতে বা কিছু বলতে থাকতে হয় না ইউটিউব এর মতো।

ছোট খাটো কয়েকটা কাজ করে আপনি ভালো একটা এমাউন্ট ইনকাম করে নিতে পারেন। আর তাছারা সি এম এস আসায় এখন তো কোনো জটিলটাই নেই।

আপনার ওয়েবসাইট কিনে বা ফ্রিতে নিয়ে আপনি টাকা ইনকাম করার কাজ শুরু করে দিতে পারবেন। আপনি যুদি ফ্রি ওয়েবসাইট দিয়ে টাকা ইনকাম শুরু করতে চান তবে আপনি আমাদের আরেকটি ওয়েবসাইট মাইবিডিব্লগ ডট কম ভিজিট করে জেনে নিতে পারবেন। (মাইবিডিব্লগ ডট কম সাইটটিতে আপনার ইনকামের জন্য আসংখ্য গাইডলাইন পেয়ে যাবেন)

অ্যাডসেন্স থেকে টাকা ইনকাম করতে চাইলে আপনাকে সর্ব প্রথম এটি ওয়েবসাইট ক্রিয়েট করতে হবে। আর তার জন্য আপনার একটি ডেমেন আর হোস্ট কিনে নিতে হবে।

ডোমেন আর হোস্ট কিনলে কোনো ভালো হস্টিং সার্ভিস প্রভাইডারদের কোম্পানি থেকে কিনে নিবেন। কারণ হোস্ট সার্ভিস প্রভাইডারে উপর আপনার ওয়েব সাইটের লোডিং স্পিড নির্ভর করে।

আর এডসেন্স এপ্রুভ এর জন্য ওয়েব সাইটের লোডিং স্পিড খুবি প্রভাব ফেলে।

অ্যাডসেন্স এপ্রুভের জন্য ওয়েবসাইট সেট আপ

আপনার ওয়েবসাইট তৈরি করার সময় কিছু বিষয় লক্ষ রাখবেন কারণ এডসেন্স এপুভের জন্য আপনার ওয়েবসাইটে এ বিষয় গুলো থাকতে হবে। নয়তো আপনি নতুন আর অনঅভিজ্ঞ হওয়ার কারনে আনেক ঝামেলাতে পরতে পারেন আর তার সমাধান ও নিজে নিজে করতে পারবেন না।

আপনার ওয়েবসাইটের থীম

একটি ওয়েবসাইটের থীম সে ওয়েবসাইটটির এডসেন্স এপ্রুভের জন্য খুবি বড় ভূমিকা রাখে।

যারা থীম বিষয়টা তেমন চিনেন না তাদের জন্য বলি,

থীম হলো আপনার ওয়েব সাইটের সাজ সজ্জা। যার মাধ্যমে আপনার ওয়েবসাইট কে আরনিয়েন্টেড করা হয় যাতে আপনার তথ্য গুলো সাজানো গুছানো থাকে।

আপনার থীম এর মেনু গুলোর সংখ্য আবশ্যই ৪টির বেশী হতে হবে আর আপনি সেগুলোতে আপনার তথ্যের কেটাগরি সাজেতে পারেন।

আর আপনার ওয়েবসাইটের থীমে অবশ্যই এস ই ও ফ্রেন্ডলি হতে হবে।

যারা এই ই ও বুঝেন না তাদের এটা নিয়ে মাথা ঘামানোর দরকার নেই। শুধু এটা মাথাং রাখুন আপনার থীম এস ই ও ফ্রেন্ডলি হতে হবে। (আপনার গুগলে সার্চ করে হাজার হাজার ফ্রি এস ই ও ফ্রেন্ডলি থীম পেয়ে যাবেন)

থীম গুলো ডাউনলোড করে আপনার ওয়েবসাইটে আপলোড করে দিবেন আর মেনু গুলো সাজিয়ে নিবেন।

মনে রাখবেন আপনি যে সি এম এস ব্যবহার করছেন তার জন্য তৈরি থীমই ব্যবহার করবেন। নয়তো থীম সেট আপ নিয়ে সমস্যায় পরে যেতে পারেন।

থীম মেনুতে যে বিষয় গুলো রাখবেন

যেমটা বলেছিলাম আপনার থীম মেনুতে ৪টির বেশী অপশন রাখবেন। আপনি যুদি অপশন চোজ করতে না পারেন বা আপনার থীমে যথেষ্ঠ চয়েজ থাকে তবে আপনি আপনার মেনুতে এ পাচটি অপশন এড করে নিতে পারবেন। (ওয়েবসাইটের সব চেয়ে উপরের মেনু ফুটার মেনু না)

পাঁচটি অপশন হলো:

  • About Us
  • Contact Us
  • Terms and Condition
  • Disclaimer
  • Privacy Policy

আপনি যুদি বাংলাতে লেখতে চান তবে লিখতে পারবেন কিন্তু আমার মতে না বাংলাতে না লিথে ইংরেজিতে লেখাই ভালো হবে। কারণ বাংলা গুগলে এভেলাভল হলেও গুগল বাংলা তেমন একটা ধরতে পারে না।

আপনারা চাইলে এভাবে ফুটার মেনুগুলোও চেন্জ করে দিতে পারবেন।

এস ই ও ফ্রেন্ডলি কন্টেন্ট

আপনি যখন আপনার ওয়েব সাইটের জন্য কন্টেন্ট বাছাই করছেন তখন একটি কথা মাথায় রাখবেন আর সেটা হলো আপনর কন্টেন্ট কোনো বেড এফেক্ট ক্রিয়েটিং বা গুগল ট্রামস ও কন্ডিশণ বিরুদ্ব কি না।

আর আপনার কনেন্ট এস ই ও ফ্রেন্ডলি কি না।

যারা এস ই ও কি জানেন না তাদের জন্য আমি ওয়ার্ডপ্রেস সি এস এস সাজেস্ট করবো। কারণ ওয়ার্ডপেসে হাজার হাজার সোর্স আছে আপনার কন্টেন্ট এর মান যাচাই এর জন্য।

সুতরাং অন্য আর কোনো দিকে মনেযোগ না দিয়ে ওয়ার্ডপ্রেন নিয়ে কাজ করুন।

আর যুদি আপনি একান্তই এস ই ও কি বুঝতে চান তবে আমাদের ”মাইবিডিব্লগ ডট কম” এই সাইটটি ঘুরে আসুন। আপনি যেমন এস ই ও বিষয়টি চিনতে পারবে ঠিক তেমনই অসংখ্য ইনকাম পদ্বতির সাথে পরিচিত হতে পারবেন।

আমি এস ই ও নিয়ে কিছুেই বলবো না কারণ এটা একটা ‍খুবি বড় বিষয় একমাত্র প্রফেশনালরাই এটা ভালো ভাবে তুলে ধরতে পারে।

আর হ্যাঁ আপনার কন্টেন্ট এডাল্ট বিষয়ক হলে আপনি কখনই গুগল এডসেন্স থেকে এপ্রুভ পাবেন না।

গুগলের ওনার রিকয়ারমেন্ট

ওয়েবসাইটের ওনার হওয়ার দরুন গুগল আপনার থেকে কিছু বিষয় বাধ্যতামূলক করে রেখেছে।

আপনি একটি ওয়েবসাইট ওনার আর আপনি একজন স্টোডেন্ট আর আপনার বয়স ১৭ বা ১৮ এর কম এবং আপনি এখনও নাগরিকে পরিণত হন নি বা আপনার আইডি কার্ড নেই, সেক্ষেত্রে আপনাকে গুগলে এক্সেপ্ট করবে না।

গুগল তাদের সাপোর্ট প্রগ্যামে সাফ সাফ বলে বিয়েছে ওয়েবসাইট ওনারকে ১৮ বছর বা এর আধিন বয়সি হতে হবে।

আর এটাও বলে দিয়েছে যে ‍যুদি ওনার ১৮ বাছরের কম বয়সি হয় তবে সে তার অভিভাবকের পরিচয় ব্যবহার করে এডসেন্স এপ্লাই করতে পারবে।

আর তাদের ইনকাম তাদের অভিভাবকের ডিটেইলে জমা হবে বা পাঠানো হবে।

সুতরাং আপনি বুঝতেই পারছেন আপনি যে কারও ডিটেইলে ব্যবহার করতে পারবেন। তবে আমার মতে যার তার ডিটেইল ব্যবহার না করে নিজের পরিবারের প্রাপ্ত বয়স্ত সদস্যদের ডিটেইল ব্যবহার কা ভালো হবে।

গুগলের ট্রামস এন্ড কন্ডিশন

আপনি আপনার কোনো ওয়েবসাইট মেক করার আগে বা তাতে কন্টেন্ট এর ধরণ বাছাই করার আগে গুগলের ট্রামস এন্ড কন্ডিশ একটু কস্ট করে পড়ে নিবেন।

কারণ আপনার তা সম্পর্কে ধারণা থাকলে আপনি খুব সহজেই কোনো ঝামেলাছারা এডসেন্স এপ্লাই করে নিজের সাইট এপ্রুভ করিয়ে নিতে পারবেন।

কারণ আমও গুগলের শর্ত গুলো না জানার কারনে গুগলের আইনের বাইরে কিছু কন্টেন্ট মেক করেছিলাম যা মূলত ব্লাক হ্যাড হ্যাকারদের বিষয়ক। যা নিয়ে আমি একটু সমস্যাতেও পড়েছিলাম, তবে এখন ঠিক করে নিয়েছি।

গুগরে বলা অণুসারে গুগলে যে কোনো সময় তাদের ট্রামস এন্ড কন্ডিশন পরিবর্তন করতে পারে। তাই কোনো কিছুতে সমস্য হবে তাদের ট্রামন এন্ড কন্ডিশ চেক করে নিবেন।

গুগল FAQ উপকারিতা

আপনার ওয়েবসাইট বা ইউটিউব চ্যানেল বা আপনার অ্যাপ যাই হোক। আপনি বেটার পারফরমেন্স এর জন্য গুগলের FAQ এর সাহায্য নিয়ে নিতে পারবেন।

কারণ FAQ যার মানে ফ্রিকোয়েন্টলি আক্সড কুইশেন যে কাস্টমারদের ঘন ঘন করা প্রশ্নের উত্তর গুগল দিয়ে থাকে। সেগুলো আপনি পড়ে দেখতে পারেন।

বা আপনি নিজের থাকা প্রশ্নগুলো গুগলে সাবমিন করে দিতে পারেন। কারণ বাংলাদেশে গুগলের হাজার হাজার ম্যানেজার যারা গুগলের কাস্টমাদের প্রশ্নের উত্তর দিয়ে থাকে।

অ্যাডসেন্স এর টাকা কি ভাবে হাতে পাবেন

অ্যাডসেন্স এর টাকা কি ভাবে হাতে পাবেন তা জানতে আপনি আমাদের এ লেখাটি পড়ে নিতে পারেন। এখানে আমরা লিখেছি আপনারা কি ভাবে আপনাদের টাকা হাতে পাবেন আর কয়ভাবে আপনার টাকা গুগল থেকে নিয়ে নিতে পারবেন।

আরও কিছু পড়ুন আপনার পছন্দের

আমাদের সাইট থেকে আপনি আরও দারকারি বিষয় পড়ে নিতে পারবেন আর জেনে নিতে পারবেন আনের পদ্বতি আর নতুন নতুন কৈশল।

আপনি যুুদি একটা কোডিং লাভার আর নিজের তৈরি অ্যাপ থেকে ইনকাম করতে অগ্রহি হয়ে থাকেন আর শুধু এড দেখানের ইনাকাম ছারাও আরও পদ্বতিতে গুগল থেকে ইনকাম করতে চান তবে আমাদের এ লেখাটি পড়ে দেখতে পারবেন।

আর তাছারা আপনি কি ভাবে একটা রিওয়ার্ড গেম অ্যাপ খুব সহজেই প্রগ্যাম করবে আর তার থেকে ইনকাম করবেন তা জানতে আমাদের এর লেখাটি পড়ে দেখতে পারেন।

কি ভাবে একজন বিগেইনার লেবেলের ওয়েব ডেবোলপার হয়ে উঠবেন আর নিজের ছোট খাট কাজ করে ইনকাম করবেন তা জনাতে আমাদের এ লেখাটি পড়ে দেখতে পারেন।

আর হ্যাঁ ইনকামের আর পদ্বতি জানতে আর ফ্রিল্যান্সিং শিখতে চাইলে আমাদে মাইবিডিব্লগ ডট কম ওয়েবসাইটটি ঘুরে আসতে পারেন।

আর কিছু পড়তে আমাদের হোমপেজটি ঘুরে দেখতে পারেন।

Featured