Android Apps Review Website

অনপেজ এসইও চেক লিষ্ট 2024

On page SEO Practics

অন পেজ এসইও ( On-Page SEO ) হল এসইও একটি গুরুত্বপূর্ন পাট। আপনি সঠিক ভাবে অন পেজ এসইও ( On-Page SEO ) করতে না পারলে। আপনার ওয়েব পোষ্ট গুগল বা অন্য সার্চ ইঞ্জিনের প্রথম দিকে নিয়ে আসাটা জটিল হয়ে পরে। তবে সব ক্ষেত্রে অনপেজ এসইও ( On-Page SEO ) যে ‍গুরুত্ব বহন করে তা না।

ওয়েব পোষ্ট সার্চ রেজাল্টের প্রথম দিকে আসার আরও একটি বড় কারন হল ভিজিটর এক্সপেকস্টেশন। যেমন ধরুন আপনি একটি লেখা লিখছেন কিভাবে সফল ব্লগার হওয়া যায়। এই ক্ষেত্রে একজন সফল ব্লগার হওয়ার জন্য যে সকল বিষয় জানা জরুরি তা উল্লেখ্য না করে। আপনি আলোচনা করছেন যে কিভাবে ব্লগ সাইট তৈরি করা যায়।

গুগল বা অন্য যে কোন সার্চ ইঞ্জিন মিসলিডিং পছন্দ করে না। সার্চ ইঞ্জিন চায় আপনি টু দা পয়েন্টে কথা বলছেন কি না। আপনার টাইটেল অনুযায়ি আপনি যথার্থ আর্টিকেল দিতে পারছেন কি না। সুতরাং অনপেজ এসইও ( On-Page SEO ) করার আগে আপনার কন্টেন্ট ইনটেন্ট সম্পর্কে ভালো জ্ঞান থাকতে হবে।

পরীক্ষা হলে আপনাকে যে প্রশ্ন করা হবে তার সঠিক উত্তর আপনাকে দিতে হবে। সঠিক উত্তর না দিয়ে এপাস ওপাস কন্টেন্ট লিখে লাভ নেই। চলুন আমরা এখন টু দ্যা পয়েন্টে কথা বলি।

অনপেজ এসইও ( On-Page SEO ) গুরুত্বপূর্ণ চেকলিষ্ট সমূহ

The image show on page seo check list
How to do your blog on page seo

অনপেজ এসইও ( On-Page SEO ) অনেক গুলো বিষয় আছে। কিন্তু আমরা সেই সকল বিষয় নিয়ে শুধু আলোচনা করব। যে সকল বিষয় অনপেজ এসইও ( On-Page SEO ) জন্য গুরুত্ব বহন করে।

টাইটেল ( Title )

অনপেজ এসইও ( On-Page SEO ) একটি গুরুত্বপূর্ণ পাট টাইটেল। আপনি কি বিষয় নিয়ে লিখছেন তার জন্য একটি হেডিং তৈরি করা। যে টাকে আমরা এইচ ওয়ান বলে থাকি।

টাইটেল সব সময় ৫৫ থেকে ৬০ ক্যারেকটার মধ্যে হওয়া উচিত। এর বাইরে আপনার টাইটেলের সাথে আপনার ওয়েবসাইটের নাম যুক্ত থাকলে কোন সমস্যা নেই। কিন্তু মেইট টাইটেলটি ৫৫ থেকে ৬০ এর মধ্যে থাকলে ভালো হয়।

টাইটেলের সাথে ব্রান্ডনেম থাকাটা জরুরি। টাইটেলের সাথে ব্রান্ড নেম ব্যবহার করা একটি অনপেজ এসইও সঠিক প্রাকটিস।

মেটা ডিসক্রিপশন ( Meta Discription )

ডিসক্রিপশন ১৫৫ থেকে ১৬০ ক্যারেকটারের মধ্যে হওয়া উচিত। প্রতিটি পেজের জন্য ভিন্ন ভিন্ন মেটা ডিসক্রিপশন হওয়া উচিত। কখনো একই মেটা ডিসক্রিপশন একবারের উপর ব্যহার করা যাবে না।

হ্যা কখনো যদি আপনার মেটা ডিসক্রিপশন ১৫৫ থেকে ১৬০ বেশি লিখতে হয় তাহলে লিখুন। কিন্তু প্রথমে আপনার মেটা ডিসক্রিপশনের মুল কথা গুলো লিখুন। মেটা ডিসক্রিপশনের মধ্যে আপনি আপনার ব্রান্ড নেম ব্যবহার করতে পারেন।

এইচ টু হেডিং ( H2 Heading )

আপনার ব্লগ পোষ্টের মধ্যে সব্বোর্চ তিনটি এসইচ টু হেডিং থাকতে হবে। তবে সব ক্ষেত্রে যে একই হবে এমনটা নয়। যেমন আপনি যদি কোন লিষ্ট পোষ্ট লিখেন সেই ক্ষেত্রে এইচ টু হেডিং অনেক হতে পারে। যেমন ৬০টি জনপ্রিয় ইউটিউব ডিজিটাল মার্কেটিং চ্যানেল।

সে ক্ষেত্রে বিষয়টি ভিন্ন। কিন্তু আপনি জন্য কোন বিষয় ব্রিফ করবেন। এ ক্ষেত্রে এসইচ টু হেডিং তিন থেকে চারটি রাখা ভালো এর বেশি নয়। যদি এর বেশি হয় তার মানে আপনি কোন ব্রিপ টপিক নিয়ে লিখছেন।

এইচ থ্রি হেডিং ( H3 Heading )

প্রতিটি এসইচ টু হেডিং এর সাথে মিনিমাম তিনটা সব্বোর্চ চারটি এইচ থ্রি হেডিং রাখবেন। তিনটি বা চারটির বেশি এইচ থ্রি হেডিং রাখার দরকার নেই।

ইউআরএল অপটিমাইজেশন ( URL Optimization )

আপনি যে ভাষায় ব্লগ লিখেন না কেন। ব্লগের ইউআরএল ইংরেজীতে হওয়া উচিত। আপনার ইউআরএল ১১০ ক্যারেকটারের বেশি হয় উচিত হয়।

এর মধ্যে আপনার ডোমেইন নাম এবং স্টপ যু্ক্ত থাকবে। আবার ১১০ ক্যারেকটার লিমিট থাকার কারনে স্টপ ওয়ার্ড বাদ দেওয়া যাবে না। কারন কখনো কখনো স্টপ ওয়ার্ড বাদ দেওয়ার কারনে আপনার ইউআরএল মিনিং পরির্বতন হয়ে যেতে পারে।

যদি কখনো মনে হয় যে ইউআরএল মধ্যে ওয়ার্ড রিপিড হচ্ছে। সেই ক্ষেত্রে আপনাকে টেকনিক্যালি ওয়ার্ড রিপিড না করে কিওয়ার্ড মিনিং ঠিক রেখে ইউআরএল সেট করতে হবে।

আপারকেস ওয়ার্ড ( Uppercase Word )

আপনার ইউআরএল মধ্যে আপারকেস ওয়ার্ড ব্যবহার করা থেকে দূরে থাকুন। একটা উদাহরন দেওয়া যাক। নিচে দেখুন

upercase word for on-page seo

এবং ইউআরএল একটি ওয়ার্ড থেকে ওয়ার্ডের মধ্যে ড্যাস ব্যবহার করুন। অন্ডার স্কোর ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকুন। অন্ডার স্কোর ব্যবহার নিয়ে তেমন কোন গুগলের বাধা নিষেধ নাই। কিন্তু ইউজার অভিজ্ঞার জন্য এটি সঠিক নয়।

ক্যানোনিক্যাল ট্যাগ ( Canonical Tags )

কোন কারন আপনার ওয়েবসাইটে তিন থেকে চার টি একই ধরনের পেজ আছে। কিন্তু আপনি চাচ্ছেন যে এই তিনটি পেজের মধ্যে শুধু মাত্র একটি মাত্র পেজ গুগল ইনডেক্স করুক। সেই ক্ষেত্রে আপনি যে পেজটি ইনডেক্স করতে চাচ্ছেন সেই পেজটির জন্য ক্যানোনিক্যাল ট্যাগ তৈরি করে বাকি পেজ গুলোতে সংযোগ করতে হবে।

ধরুন, আপনার কাছে তিনটি পেজ আছে একই ধরনের। পেজ ওয়ান, পেজ টু, এবং পেজ থ্রি। আপনি চাচ্ছেন পেজ টু পেজটি ইনডেক্স করাতে। সেই ক্ষেত্রে পেজ ওয়ান এবং পেজ থ্রি পেজে ক্যানোনিক্যাল ট্যাগ লাগাতে হবে।

<link rel=”canonical” href=”https://example.com/page2″> এই ট্যাগটি পেজ থ্রি এবং ওয়ানে লাগাতে হবে। এবং একই সাথে পেজ টু পেজে লাগাতে হবে।

শেষ কথা

আপনি আপনার ব্লগের জন্য নিজ থেকে অনপেজ এসইও করতে চাইলে যে বিষয় গুলো উল্লেখ্য করা হয়েছে সেগুলো জানাটা জরুরি। একই সাথে এসইও ইমেজ অপটিমাইজেন ও টেকনিক্যাল এসইও বিষয় জ্ঞান থাকতে হবে। আপনি এসইও বিষয় একবারে নতুন হয়ে থাকলে একজন এসইও এক্সপার্টের ( SEO Expert ) সহযোগিতা নিতে পারেন। যে আপনাকে সঠিক ভাবে অনপেজ এসইও ( On-Page SEO ) করতে সহযোগিতা করবে।