ফ্রি টাকা ইনকাম করুন আর ব্যাংকে নিন পেমেন্ট

free money

ফ্রি টাকা ইনকাম করার হাজারটা মাধ্যম আছে তাও আবার ব্যান্ডেড ছোট খাটো না। শুধু মাএ ঠিক মতো না জানার কারণে আনেকেই ইনকাম করতে পারে না।

একটা স্মার্টফোন হলেই ইনকাম শুরু করা যায়। তকে স্কিন ছোট হওয়ার কারণে সমস্যায় পরতে হয়। হ্যাঁ আপনি মোবাইল দিয়ে ইনকাম করেনিতে পারবেন হাজার হাজার ডলার। আমি টাকার কথা বলছিনা আমি বলছি ডলারের কথা।

ছাত্রজীবনে অনলাইন থেকে ইনকাম করতে গিয়ে যে ভুল গুলো সচরাচর ছাত্ররা করে থাকে তা হলো ইনকাম করার জন্য বিভিন্ন অ্যাপ খোজা। আর সে অ্যাপটি থেকে ইনকাম করা।

তবে এটাতে আমি না বলব না যে অ্যাপ থেকে ইনকাম করা যায় না। তবে সে অ্যাপগুলো থেকে যেমন কম ইনকাম হয় ঠিক তেমনি যখন অনেকে কাজ করতে শুরু করে বা তাদের পরিচিতি হয়ে যায় তখন তারা পেমেন্ট দেওয়া বন্ধ করে দেয়।

কারণ তাদের লক্ষই থাকে তাদের ডাউনলোড সংখ্যা বাড়ানো। আর সেটা হওয়ার পর পযাপ্ত পরিমানে ইনকাম পাওয়ার পর তারা তাদের টাকা নিয়ে সরে যায়।

তবে আজ আমি আপনাদের সাথে এমন কয়েকটি কাজ শেয়ার করব যেটা দিয়ে আপনি ইনকাম করে নিতে পারবেন খুব সহজেই বিশ্বস্ত ব্যান্ডগুলোর থেকে।

ফ্রি টাকা ইনকাম করার জনপ্রিয় মাধ্যম

আমরা প্রায় সবাই ওয়েবসাইটের নাম শুনেছি। কিছু বছর আগেও ফ্রি ওয়েবসাইট দিয়ে টাকা ইনকাম করা যেত না। কিন্তু এখন করা যায়। গুগল এ সুযোগ করে দিয়েছে।

ব্লগার গুগলের একটি পণ্য যেটা থেকে ফ্রি ব্লগসাইট তৈরি করা যায় তবে তার থেকে আগে ইনকাম করা যেত না। আর যুদি ব্লগার থেকে ইনকাম করতে চাইতো কেউ তবে তাকে ডোমেইন কিনে নিতে হতো।

কিন্ত এখণ আর এমন হয়না। এখন ব্লগারে ফ্রি সাইটগুলো ইন্ডেক্স হয় এবং সাধারণ সাইটের মতো রাংকও করে। আর এখন এটা এডসেন্স দ্বারা অ্যাপ্রুভও পায়।

ব্লগার (Blogger)

ব্লগারে পোস্ট মোবাইল ডিভাইস থেকেও লেখা যায়। আর তার জন্য কস্টও কম হয়। কারণ ব্লগারের পেজটি সাধারণ নোটপেডের মতো।

আর ব্লগার একাউন্ট করারটা কোনো কঠিন বিষয় না। এর জন্য আপনার একটা জিমেইল একাউন্ট করাই যথেষ্ঠ। আপনি আপনার ডিভাইস থেকে শুধু ব্লগার লিখে সার্চ করলে আপনার সামনে ক্রিয়েটা ব্লগার এসে যাবে।

আপনি সেখান থেকে ব্লগার একাউন্ড করে নিবেন। আর আপনার কাছে নাম আপনার ওয়েবসাইটের ঠিকানা এসব দিয়ে খুব সহজেই আপনি একাউন্ট করে নিতে পারবেন।

আপনাকে যে ডোমেনটা দেওয়া হবে সে ডোমেনটা ফ্রি হওয়ার কারণে সেখানে example.blogspot.com এড হবে। তবে আপনি আপনার কাজ সেখানে কেনা ডোমেন দিয়ে করা ব্লগারের মতো করতে পারবেন।

কি করে ফ্রি ব্লগারের ওয়েবসাইটে অ্যাডসেন্স অ্যাপ্রুভ দ্রুত নিতে পারবেন

ছবি বিক্রি করে আয়

আপনি অনলাইন থেকে ছবি বিক্রি করে একেবারে ফিতে ইনকাম করে নিতে পারবেন। ইন্টারনেতে এমন হাজার হাজার ওয়েবসাইট আছে যেগুলো শুধু মাত্র ছাবি কেনা বেচা করার জন্য তৈরি করা হয়েছে।

সে সাইট গুলোতে বাইয়াররা ভালো ভালো রেটে ছবি কিনে নেয় ভিবিন্ন কাজের জন্য। তবে এখানে একটা কথা বলতেই হবে যে আপনার ছবিটি অবশ্যই মানসম্মত হবে হবে।

আর তারজন্য আপনি একটা ভালো ক্যামেরা ব্যবহার করে নিতে পারবেন। তবে আপনি আপনার এনড্রোয়েড ডিভাইস দিয়েও ছবি তুলে বিক্রি করতে পারবেন।

আর এ জন্য আপনাকে কোনো কাজ করতে হবে না। শুধু একটি একাউন্ট করে প্রফাইল কম্পিলিট করে আপনার নিজের তোলা ছবি গুলো আপলোড করে রাখতে হবে সাইটটিতে।

কোনো বাইয়ারের পছন্দ হলে সেখান থেকে আপনার সাথে যোগাযোগ করবে। আর আপনার ছবির মূল্য দিয়ে কিনে নিবে। তবে এখানে কথা হচ্ছে বেশীর ভাগ ছবি বিক্রির সাইট গুলোই পেপালে পেমেন্ট করে।

আর যেহেতু পেপাল বাংলাদেশে সাপোর্টেড না তাই আমরা পেপালের পেমেন্ট গ্রহণ করতে পারিনা। তবে কিছু কিছু সাইট আছে যেগুলো পেওনিয়ারে এবং ব্যাংকে পেমেন্ট এর অপশন অ্যাবেলাবল করে রাখে।

পেওনিয়ার এবং ব্যাংক অ্যাবেলাবল এমন ফটোগ্রাফিক সাইট গুলো

টি-শার্ট ডিজাইন করে আয়

টি-শার্ট ডিজাইন করে বর্তমানে ভালো আয় করে নেওয়া যায়। এখন ইন্টারনেটে হাজার হাজার ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেস তৈরি হয়ে উঠেছে। আর সে মার্কেপ্লেস গুলোতে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে যে কাজ গুলো অনলাইনে করে নেওয়া যায় তার সবই করা হয়।

বিষেশ করে ফ্রিল্যান্সিং নামটা শুনলেই মাথায় আসে ওয়েব ডেবোলপমেন্ট, গ্রাফিক ডিজাইন, ডাটাবেস মেনেজমেন্ট, ওয়বেসাইট ডিজাইন, কোডিং এবং আরও এমন অনেক কথা।

আমরা অনেকেই জানিনা আসলে এ মার্কেটপ্লেস গুলোতে র্টি-শার্ট ডিজাইন বিক্রিকরেও ভালো ইনকাম করে নেওয়া যায়। আর তাছারা টি-শার্ট ডিজাইন বিক্রির ক্ষেত্রে কম্পিটিশন খুবি কম। তাই কাজ পাওয়ার সম্বাবনাও বেশী থাকে।

আর টি-শার্ট ডিজাইন করা তেমন কোনো কঠিন কাজ না। তবে কঠিন না হলেও কাজ শিখে জয়িন করাটা ‍খুবি গুরুত্ব

পূর্ণ।

এখানে প্রশ্ন থেকে যায় কোন কোন মার্কেটপ্লেসে টি-শার্ট ডিজাইন এর কাজ পাওয়া যায়। উত্তরে আমি বলব প্রায় সবগুলো মার্কেটপ্লেসেই টি-শার্ট ডিজাউন করে বিক্রির কাজ পাওয়া যায়।

আর একজন টি-শার্ট ডিজাউনার খুব সহজেই কাজ পায়। আর তাই তুলনামূলক ভাবে একজন টি-শার্ট ডিজাইনার অধিক দ্রুত ইনকাম শুরু করে দিতে পারে।

মার্কেটপ্লেস গুলো যে গুলো টি-শার্ট ডিজাইন সাপোর্ট করে

আরও কিছু পড়ুন আপনার পছন্দের

আমাদের হোমপেজ থেকে আপনি বিভিন্ন আর্টিকেল খুজে পেয়ে যাবেন। যেটা সম্পর্কে জানাটা আপনার প্রয়োজন তা আপনি জেনে নিতে পারবেন আর্টিকেল গুলো পড়ে।

আমাদের এখানে আমরা লিখি অনলাইন ইনকাম জনিত, অ্যাপ রিভিউ জনিত আর্টিকেল। যেগুলো আপনার অনেক কাজে আসতে পারে।

Featured