ফ্রিল্যান্সিং কি? জনপ্রিয় ৫ টি ফ্রিল্যান্সিং শেখার ওয়েবসাইট

ফ্রিল্যান্সিং

ফ্রিল্যান্সিং কি? ফ্রিল্যান্সিং হলো অনলাইন থেকে ইনকাম করার একটা স্থায়ী পদ্বতি। ফ্রিল্যান্সিং এর মাধ্যমে আপসি মাসে লাখ লাখ টাকা ইনকাম করে নিতে পারবেন ঘরে বসে। কোনো চাকরি না করে বাসাই বসে ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেসগুলো থেকে নিজের স্কিল দিয়ে আন্যের কাজ করে দেওয়া বিনিময়ে একটা ভালে এমাউন্ট নিয়ে নেওয়া। আপনি চাইলে ফ্রিল্যান্সিংকে আজীবন অনলাইন ইনকামের চাবিও করে রাখতে পারবেন।

বর্তমানে ফ্রিল্যান্সিং এতটাই পপুলার হয়ে গেছে যে বাংলাদেশে একটা বড় মাপের যুব সমাজ এর সাথে জরিত। এখন বাংলাদেশের যুবকরা চাকরির অভাবে ভোগে না। কারণ ফ্রিল্যান্সিং করার মাধ্যমে তারা নিজেদের ক্যারিয়ার অনলাইনে গড়ে তুলছে।

আর বর্তমানে ঘরে বসে কোনো চাকরি না করে মাস শেষে হাজার হাজার টাকা ইনকাম করে নিচ্ছে ক্লাস 10 পড়ুয়া ছাত্রটিও। আর যারা প্রফেশনাল ফ্রিলান্সার তারাতো মাসে ইনকাম করে নিচ্ছে লাখ লাখ টাকা।

ফ্রিল্যান্সিং আপনি আজীবন করে আনলাইন থেকে টাকা ইনকাম করতে পারবেন কারণ এখানে ফিজিকাল ভাবে আপনার শরীরের শক্তি খাটিয়ে কোনো কাজ করতে হয় না। শুধুমাত্র নিজের স্কিল এবং মেধা খাটিয়ে কাজ করতে হয়।

ফ্রিল্যান্সিং শেখার জন্য এখন পযন্ত লাখেরও উপরে টিউটেরিয়াল তৈরি হয়ে আছে। তবে ফ্রি বলতে খুব কম তাও আবার সীমীত পরিসরে। যুদ পরিপূর্ণভাবে শিখতে চান তবে আপনাকে অবশ্যই পেইড কোনো টিউটেরিয়াল কিনতে হবে। আর একটা টিউটেরিয়াল কিনে টাকা খরচের ব্যাপারে নিজের জন্য সেরাটা বাছাই করাটাই একটা বিশাল কাজ।

তবে আজ আমরা আপনাদের সাথে এমন কিছু বাছাই করা টিউটেরিয়াল শেয়ার করবো যেগুলো কিনে বা করে আপনি কোনো প্রকার অসনতুস জনক অভিঙ্গতায় পরবেন না। তবে চলুন আমারা আমাদের আলোচনা শুরু করি।

জনপ্রিয় ৫ টি ফ্রিল্যান্সিং শেখার সেরা ওয়েবসাইট

হাজার হাজার ওয়েবসাইট আছে ফ্রিল্যান্সিং শেখানোর জন্য। কিন্তু খুব কমই পুরোপুরি ভাবে বুঝিয়ে বলে আর লাইভ পজেক্ট করে দেখায়। আর লাইভ পজেক্টের মাধ্যমে খুব সহজেই সবকিছু বুঝা যায় এক কথায় একটা ছোট অভিঙ্গতা হয়।

এখানে আমি তালিকা ভুক্ত করবো সের ১০ টি ফ্রিল্যান্সিং শেখার ওয়েবসাই এবং এখানে আমি গুগল অ্যাপ ও রাখতে পারি যা থেকে ফ্রিল্যান্সিং শেখা সম্ভব।

যে কোনো কোর্স কেনার আগে অবশ্যই এর সম্পর্কে লেখা ডেক্সিপশন পড়ে সে কোর্সটি সম্পর্কে ভালো করে জেনে নিবেন। কারণ একটা কোর্স কিনতে একটা ভালে মাপের টাকাই খরচ হয় আর টাকা দিয়েই যেহেতু কিনবেন তবে সেরাটা কেনো নয়।

ফ্রিল্যান্সিং শেখার সেরা ওয়েবসাইট গুলো সম্পর্কে বলতে গেলে যেওয়েব সাইটটির নাম না বললেই নয় সেটি হলো রবি টেন মিনিট স্কুল। আমরা জানি রবি টেন মিনিট স্কুল একটি অনলাইন স্টাডি বিষয়ক অ্যাপ কিন্তু ফ্রিল্যান্সিং এর ব্যপক পরিচিতির কারণে এবং বাংলাদেশের প্রধান মন্ত্রির দ্বারা যোষিত হওয়ার কারণে তারাও ফ্রিল্যান্সিং সম্বন্ধিয় টিউটেরিয়াল চালু করে।

তো আমি প্রথমেই যে টিউটেরিয়াল প্রভাইডিং কমিউনিটিকে রাখবো সেটি হলো:

১. রবি টেন মিনিট স্কুল

Robi 10 minute school

রবি টেন মিনিট স্কুল ওয়েবসাইটে এখান ফ্রিল্যান্সিং কোর্স এভেলাভল। এ কোর্সটি জয়িতা ব্যানার্জি যিনি একজন হাই লেভেল এবং হাই রেটেড ফ্রিলান্সার ফাইবারে, আপওয়ার্কে, এবং আরও ভালো ভালো ভালো মার্কেটপ্লেসে।

জয়িতা ব্যানার্জি এ কোর্সটিকে খুব সুন্দর করে ফ্রিল্যান্সিং এর খুটি নাটি এবং অনেক অজানা তথ্যদিয়ে সাজিয়ে গুছিয়ে তৈরি করেছে। এ কোর্সটিতে মোট ভিডিও টিইটেরিয়াল সংখ্যা হলো ৭৮ টি। আর এর ওয়াচ টাইল হলো ২০ ঘন্টা।

এখানে আপনি আপনার স্কিল টেস্ট করার জন্য কোর্স শেষে কুইজে আংশগুহণ করতে পারবেন। এর এখানে কুইজ রাখা আছে মোট ৭৩টি। এখানে আপনাদের কোর্স শেষে দেওয়া হবে একটি পিডিএফ বই যাতে এর সব লেখা থাকবে। এখান থেকে আপনি আরও পেয়ে যাবেন ৪টি চিনশিট ২ টি টাস্ক এবং ৪টি ফ্রি ভিডিও।

কোর্সটির দাম পরবে ৪৫০০ টাকা আর এখন কিনলে ৪৫০ টাকাতে পেয়ে যাবেন।

যে ভাবে কোর্সটি নিয়ে নিবেন

  • নিজের মোবাইল নম্বর দিয়ে লগইন করুন
  • বাই নাউ আপশনটিতে ক্লিক করুন
  • পেমেন্ট ম্যাথোড বাছাই করে পেমেন্ট সেন্ট করুন

কেনার পর যেভাবে কোর্সটি করবেন

  • নিজের একাউন এ যাবেন
  • ইউর কোর্স আপশনটি বাছাই করবেন
  • সেখান থেকে নিজের কোর্সটি বাছাই করবেন
  • স্টার্ট লার্নিং এ এন্টার করবেন
  • কোর্স শেষে আপনি পেয়ে যাবেন আপনার সার্টিফিকেট

অবশ্যই মনে রাখবেন আপনাকে সার্টিফিকেট নিতে হলে সবগুলে ভিডিও কম্পিলিট করতে হবে, সবগুলো কুইজএ অংশ নিতে হবে, সবগুলো টাস্ট কম্পিলিট করে তার পরই আপনি সার্টিফিকেট নিতে পারবেন।

ঘরে বসে Freelancing কোর্সটি আলাদা কারণ

এই কোর্সটিতে ফ্রিল্যান্সিং এর শুরু থেকে শেষ পরিপূর্ণ ব্যখ্যা করা হয়েছে। আর এখানে আপনার নিজের প্রফাইল তৈরি করা থেকে শুরু করে লাইভ পজেক্ট করে দেখানো হয়েছে।

আমি ব্যাক্তিগত ভাবে বিগেইনার আবার যার ফ্রিল্যান্সিং সম্পর্কে আনেকটাই ভালো জানেন তবে এখনও কাজ শুরু করেন নি আবার যারা কাজ শুরু করে ‍দিয়েছে কিন্তু বায়ার পান না তাদের এ কোর্সটি কিনতে বলবো।

কোর্স না কিনতে পারলেও আপনি তাদের বইটি পড়ে দেখতে পারেন। ভালে লাগলে কোর্স কিনে নিবেন। বইটির মূল্য এখন কিনরে ৭৫ টাকা তবে ডিস্কাউন্ট চলে গেলে বইটির মূল্য হয়ে যাবে ১৫০ টাকা কারণ এটাই বইটির আসল মূল্য।

মনে রাখবেন কোর্সটি কেনার পর আপনাকে তাদের ওয়েবসাইটে গিয়েই কোর্স কম্পিলিট করতে হবে। তবে এখানে একটা মজার বিষয় হলে আপনার জন্য তারা এখানে রেখেছে স্কিল ডেবোলপন্টে এর ব্যবস্থা।

ফ্রিল্যান্সিং

আর তাছারা স্কিল ডেবোলপমেন্ট এর প্রশ্ন আসলেও রবি 10 মিনিট স্কুল এগিয়ে কারণ এখানে আপনার নিজের ইংরেজি বলার স্কিল ডেবোলপ করতে পারবেন। আর আপনার একজন এনিমেশন মেকার বা ওয়েব ডেবোলপার হওয়ার স্বপ্নও আপনি এখানে থাকা কোর্স গুলোর মাধ্যমে করে নিতে পারবেন।

ফ্রিল্যান্সিং শেখার জন্য ওয়েব সাইট এর কথা আসলে রবি 10 মিনিট স্কুলের পরে যে ওয়েব সাইটটি সেরা সেটি হলো অনলাইন বই সপ রকমারি।

২. রকমারি রই ঘর

rokomari

রকমারি বই ঘর ফ্রিলান্সিং শেখার জন্য তেমন কোনো স্পেশিফিক ওয়েবসাইট না। তবে এখানে থাকা বই গুলে সত্যিই খুবি ভালে ব্যাখ্যার সাতে লেখা।

তবে এখানে মজার ব্যাপার হলো রকমারি বই ঘর থেকে আপনি ভডিও টিউটেরিয়ালও পেয়ে যাবেন। কারণ এখান থেকে আপনার কেনা বইগুলো আপনি পিডিএফ ফরমেটে না বরং আপনাকে একটা রিয়েল বই ডেলিবারি করা হবে। আর সে বই এর সাথে থাকতে পারে সিডি, ডিবিডি এই সব।

আপনি রকামারি বই ঘরে পেয়ে যাবেন ফ্রিল্যান্সিং শেখার জন্য ভালো সংখ্যক বই শিখে নিতে পারবেন আপনার ইন্টারেস্ট অণুসারে। যে বই গুলোর সাতে ডিবিডি আথবা সিডি দেওয়া হয় সে বইগুলো মূল্য একটু বেশী।

এ ওয়েব সাইটটিতে যে বই গুলো ফ্রিল্যান্সিং শেখার জন্য আসাধরণ হবে সেগুলো হলো।

  • ফ্রিল্যান্সার নাসিম এর লেখা – ওয়েব ডিজাইন শিখে ডলার আয়
  • জয়িতা ব্যানার্জির লেখা – ঘরে বসে আয় করুন
  • আব্দুল কাদেরের লেখা – পূর্ণাঙ্গ রূপে SEO শেখা এবং অনলাইনে আয়ের উপর ১০০ টি HD বাংলা ভিডিও টিউটোরিয়াল
  • হাসান জুবাইর এর লেখা – এডোবি ফটোশপ সিসি ২০২১ : বেস্ট সেলার বাংলা ভিডিও টিউটোরিয়াল (৩টি ডিভিডি)
  • বাপ্পি আশরাফ এর লেখা – কমপ্লিট এডোবি ফটোশপ (সিডি সহ)
  • হাসান জুবাইর এর লেখা – এডোবি প্রিমিয়ার প্রো সিসি : বেস্ট সেলার বাংলা ভিডিও এডিটিং টিউটোরিয়াল কোর্স (৩টি ডিভিডি)

এ বই গুলো যেমন আপনাকে ফ্রিল্যান্সিং এর জগতের জন্য গরে তুলবে আর স্কিটও ডেবোলপ করবে।

খন আমি যে ওয়েব সাইটটি সম্পর্কে বলবো সেটি হলো সফ্টটেক আইটি।

৩. Softtach it

Softtach it ঢাকার একটি ফ্রিল্যান্সিং শেখার ইন্সটিটিউট। এখান থেকে এখন পযন্ত হাজারেরও বেশী ফ্রিল্যান্সার তৈরি হয়ে রেরিয়েছে।

একটা বিষয় হলো এখানে যারা ট্রেন করে তারা আপনার যে কোনো সমস্যায় সাপোর্ট দিবে। কোর্স শেষ হয়ে গেলেও এরা আপনাদের যে কোনো প্রকার সমস্যায় সাহায্য করবে।

এদের কাছ থেকে আপনি যে কোর্সগুলো পেয়ে যাবেন:

  • অ্যাডভান্স ওয়ার্ডপ্রেস ডেভোলপমেন্ট
  • প্রফেশনাল ক্রিয়েটিভ গ্রাফিক ডিজাইন
  • ওয়ার্ডপ্রেস অনলাইন কোর্স

কোর্সটি কেনার জন্য যা যা থাকা লাগবে:

  • কম্পিউটার এবং ইন্টানেট কনেকশন
  • হটলাইনে কল করে তাদে বেচ সম্পর্কে জেনে নিন
  • ৩ কপি পাসপোর্ট সাইজের ছরি এবং আপনার ন্যাশনাল আইডি কার্ডের আর ন্যাশনাল আইডি কার্ড না থাকলে জন্ম নিবন্দন এর ফটোকপি
  • কোর্স ফ্র

অনলাইনে শেখার জন্য ‍আপনার তেমন কিছুর প্রয়োজন হবে না। আপনি তাদের দেওয়া নাম্বারে ফোন করার সাথে সাথে তারা আপনার সাথে সংযুক্ত হবে আর আপনার তথ্য জানতে চাইবে। তখন আপনি পেমেন্ট করে আপনার ইন্টেন্ট বাছাই করে কোর্স শুরু করে দিতে পারবেন।

Softtach it এর কোর্সটির মূল্যা হলো ১৫০০০ টাকা। আপনি পেমেন্ট করার পরই তাদের বেচে এড হতে পারবেন।

শেষের দিকে আমি যে ওয়েব সাইটটির সম্পর্কে বলবো তা হলে ফাইবার।

৪. ফাইবার (Fiverr)

ফাইবার হলো একটি ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইট। এখানে কোটিরও বেশী ফ্রিল্যান্সার কাজ করে যাদের গুণে হিসাব লাগাতে আনেকটা দিন লেগে যাবে।

ফাইবার আসলে একটি বিশাল বড় প্লাটফরম অনলাইন ফ্রিলান্সার হায়ার করার মার্কেটপ্লেস হিসেবে। আর এখানে যেমন হাজার হাজার ফ্রিল্যান্সার কাজ করে তেমনি এখান থেকে কোর্স করে নিজেকে দক্ষও করা যায়।

আমার বলা শুরুর দিকের ওয়েবসাইডটগুলেতে আপনি একটা নিদিষ্ট বিষয়ে কোর্স করতে পারবেন কিন্তু নিজের মন মতো যে কোনো কোর্স করে ‍নিতে পারবেন না। যেমস সফ্টটেক আইটিতে আপনি শুধু ওয়েব সাইট ডেবোলপমেন্ট এর কাজ আর গ্রাফিক ডিজাইন এর কাজ ছারা ফটোগ্রাফির কোর্স করে নিতে পারবেন না।

কিন্তু ফাইবারে আপনি প্রায় সবধরণের কোর্সই করে নিতে পারবেন। যেমন আপনি এখন একজন প্রগ্যামার হতে চান সেক্ষেত্রে আপনি ফাইবারে গিয়ে কোর্সটির নাম লিখে সার্চ করলে পেয়ে যাবেন।

তবে অবশ্যই মনে রাখবে আপনি যে কোর্সটি কিনবেন ভাবলে তার সম্পর্কে ভালোভাবে জেনে নিবেন। কারণ টপিক অনুসারে কাজের প্রকারভেদ আণুসারে কোর্সেরও বিভিন্ন লেভেল হয়।

কারণ এখন আপনি বিগেইনার আর আপনি না বুঝে গিয়ে কিনে নিলেন প্রোফেশনাল। আপনি যা ভিডিও গুলো দেখতেই পাবেন আর কথাগুলো শুনতে পারবেন কিন্তু কিছুই বুঝবেন না।

৫. ইউডেমি (Udemy)

ইউডেমি ওয়েবসাইটটি ফাইবারের পরে একটা বিশাল প্লাটফরম যেখানে আপনি নিজের ইন্টেন্ট অণুসারে কোর্সে করে নিতে পারনে।

এখানে কেটাগরি অণুসারে সাজানো আছে হাজার হাজার কোর্স। প্রত্যেকটি কেটাগরির আন্ডারে আছে হাজারেরও বেশী কোর্স। এখানে সব প্রফেশনাল আর এক্সপার্টরা তাদের প্রতিটি সেক্টরে অবিঙ্গতা নিয়ে করে রেখেছে ভিডিও কোর্স।

ইউডেমিতে আপনি যে বিষয়গুলো শিখতে পারবেন:

  • পাইথন
  • ওয়েব ডেবোলপমেন্ট
  • মেশিন লাননিং
  • এক্সেল
  • জাবা স্ক্রিপ্ট
  • ডাটা সাইন্স
  • এ ডবলু এস ছারর্টিফিকেশন
  • ড্রয়িং

এছারারও আরও অনেক আপনি খুব সহজেই শিখেনিতে পারনে:

  • এখানে ডেবোলপমেন্ট এর কেটাগরিতে সব ধরণের ডেবোলপমেন্টএর কাজ রাখা আছে
  • ডিজাইন এর ক্ষেত্রে সব ধরণের ডিজাইন
  • বিজনেস এর ক্ষেত্রে সব ধরনের বিজনেস
  • আর পার্সনাল ডেবোলপমেন্ট

পরে দেখানো ৫টি ওয়েবসাইট এর মধ্যে শেষে দেখানো ২টিতে পেমেন্ট দিতে হলে বা কোর্স কিনতে হলে আপনাকে মাস্টারকার্ড বা ভিসা কার্ড দিয়ে পেমেন্ট করতে হবে।

আর যেহেতু ছাত্রদের কাছে বা বিগেইনারদের কাছে এসব থাকে না আর তাছারা বাংলাদেশ ব্যাংগুলে সহজে এ কার্ডগুলো প্রভাইড করে না সেহেতু আপনারা প্রথমের দিকে দেখানে ৩টি কোর্স এর মধ্যে যেকোনো একটি কিনে নিজের ফ্রিল্যান্সার হওয়ার পথে হাতা শুরু করে দিতে পারবেন।

আর যুদি একজন বিশেষ ব্যাক্তি বা প্রফেশনাল হয়ে থাকেন তবে এক্সপার্ট মেক টিউটেরিয়ার শিখেনিতে পারবেন ফাইবার বা ইউডেমি থেক।

ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেস

ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেস হলো সে প্লাটফরম যেখানে ফ্রিল্যান্সিং এর কাজ থাকে আর ফ্রিলান্সারা সার্ভিস প্রভাইড করে। এখনকার কিছু খুবি পপুলার ফ্রিল্যান্সার মার্কেটপ্লেস গুলো হলো:

  • ফাইবার ( Fiverr)
  • আপওয়ার্ক (Upwork)
  • ফ্রিল্যান্সার ডট কম (freelancer .com)
  • পিপল পার আওয়ার (people per hour)
  • বিহেন্স (Behance)
  • গুরু (Guru)
  • ড্রিবববেল (Bribbble)
  • সার্টআপারস (startupers)
  • ফুলই (folyo)
  • ক্লারিটি (clarity)
  • গিগিস্টার (gigster)
  • ক্রিয়েটিভ মার্কেট (creative market)
  • স্মেশিং জবস (Smashing jobes)
  • টুপাল (toptal)
  • অথেনটিক জবস (Authentic jobs)
  • উই ওয়র্ক রিমটলি (We work remotely)

এছারাও আরও অনেক ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেস আছে। তবে আপনি এগুলো একাউন্ট করে কাজ শুরু করে দিতে পারনে। তবে বিগেইনার হলে আপনি ফাইবার আর ফ্রিল্যান্সার ডট কমেই কাজ করুন এটাই আমার সাজেশন।

ফ্রিল্যান্সিং ট্রেনিং সেন্টার

ফ্রিল্যান্সিং ট্রেনিং সেন্টার এর ব্যাপারে বলতে গেলে যুদি আপনি ভালো পশিক্ষক খুজে থাকেন তবে ঢাকাতে আপনাকে কোর্স করত হবে। ঢাকার ফার্মগেইডে প্রায় আনেকগুলে ফ্রিল্যান্সিং ট্রেনিং সেন্টার আছে। যেগুলো থেকে আপনি নিজের মতো বাছাই করে কোর্স করে নিতে পারবে।

ঢাকার বাইরেও ফ্রিল্যান্সিং ট্রেনিং সেন্টার আছে তবে সেগুলে সম্পর্কে আমার তেমন কিছুই জানা নেই আর তাই আমি সেগুলো সাজেস্টও করবো না।

ঢাকায় ফ্রিল্যান্সিং ট্রেনিং সেন্টার গুলোর মধ্যে আমি সাজেস্ট করবো সফ্টটেক আইটি। কারণ এটা গত অনেক বছার ধরে চলে আসছে সফলতার সাথে।

ইংরেজি শেখার কোর্স

ফ্রিল্যান্সিং করতে গেলে যে বিষয়টি জানা লাগবেই, যেটা ছারা হবে না সেটা হলো ইংরেজি। আর আপনার ইংরেজি ইম্প্রুভকরার জন্যও আছে হাজার হজার কোর্স। তবে তেমন ভালো কোর্স এত সহজে পাবেন না।

তবে আমি আপনার জন্যা যে ইংরেজি শেখার কোর্সটি সাজেস্ট করবো সেটি হলো রবি 10 মিনিট স্কুলের স্কিল ডেবোলপমেন্ট এ থাকা ইংরেজি শেখার কোর্স এটি করতে।

ইংরেজি শেখার কোর্স

এ কোর্স থেকে আপনি খুব সজেই ইংরেজি শিখে নিতে পারনে। তবে মনে রাখবে আপনাকেউ ইংজের বেসিক জানতে হবে কারণ একেবারে শূণ্য হয়ে আসলে আপনি শেখার থেকে বিরক্ত হবেন বেশী।

ফ্রিল্যান্সিং এ কি কি কাজ করা যায়

ফ্রিল্যান্সিং হলো একটি ওয়াইড এরিয় যাতে সে সব স্কিল কাজে আসে যা ইন্টারনেট বা কম্পিউটার এর মাধ্যমে করা সম্ভব আর ইন্টারনেট এর মাধ্যমে টান্সফার সম্ভব।

সুতরাং ফ্রিল্যান্সিংএ কি কি করা যায় তা বলতে গেলে একটা বিশাল তালিকা করতে হবে আর ফল স্বরুপ তালিকার পরে তালকা করেই যেতে হবে কিন্তু ফ্রিল্যান্সিং এ কি কি কাজ করা যায় তার ব্যাখ্যা শেষ হবে না।

তবে আমি এখন বর্তমানে চলছে এবং ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেস গুলোতে বেশ ডিমান্ডেন্ট এমন কিছু স্কিল সম্পর্কে বলব। সে স্কিল গুলো হলো:

  • ওয়েব ডিজাইন ও ডেবোলপমেন্ট
  • এস ই ও
  • গ্রাফিক ডিজাইন
  • কনেন্ট রােইটিং
  • ডাটা এন্টি
  • লগো ডিজাইন
  • কম্পানি নেম মেক
  • লেঙ্গুইজ ট্রান্সলেট
  • ভয়েসওভার
  • থিডি এনিমেশন
  • থিডি মডেল মেইকিং
  • টি শার্ট ডিজাইন
  • ভারচুয়ার এসিসটেন্ট
  • বিসজেন হেল্প
  • ড্রপশিপিং
  • ইথিকাল হ্যাকিং
  • সফ্টওয়্যার ডেবোলপিং

এবং আরও অনেক। আপনি আপনার পছন্দের কাজ যেটি আপনি করতে পছন্দ করেন বা যেটি করতে আপনার ভালে লাগে সেটি নিয়ে নিজের ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়ার শুরু করে দিতে পারবেন।

তবে আমার মতে আপনি যতই এক্সপার্ট হোন না কেন ফ্রিলান্সার হিসেবে নিজেকে পরখে করার আগে একটা কোর্স করে নিন।

ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়ার

ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়ার, আমাদের দেশ একটা ছোট দেশ অথচ এর জনসংখ্যা এর আয়তনের তুলনাং আনেক বেশী। জনসংখ্যা বাড়ার কারণে বাড়ছে যুবকদের কাজের চাহিদা। এখন এই মুহুত্বে সরকারও গালে হাত দিয়ে এটাই ভাবেছে এত শিক্ষিত যুকদের বেকারত্ব কী ভাবে দুর করবে।

কারণ প্রয়োজনের থেকে বেশী নিয়োগতো নেওয়া সম্ভব না। তখন কিছু যুবক অনলাইন মার্কেটপ্লেস খুজে তাতে কাজ শুরু করে। আর ভালো টাকা ইনকাম করে নেয়। আর ধিরে ধিরে এটা ছরিয় পরে এক সময় বাংলাদেশের শিক্ষিত যুব সমাজর আর চাকরি পেছনে না দৈরে এ কাজটিই করতে শুরু করে যার না ফ্রিল্যান্সিং।

বাংলাদেশের নিরক্ষরতা দুর করতে পারবে এমাত্র ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়ার। ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়ার গরাটা কোনো কঠিন বিষয় না। শুধু স্কিল আর ভালে ইংরেজি জানলেই এটা করা সম্ভব। এত কোনো সার্টিটিকেট এর ও প্রয়োজন হয় না।

সুতরাং এতা যেমন সহজ তেমই ভালো আনলাইন ইনকামের প্লটফরম।

ফ্রিল্যান্সিং শেখার বই

যারা ফ্রিল্যান্সিং শেখার জন্য বই খুজছেন তাদের জন্য আছে আমাদের লেখা ফ্রিল্যান্সিং শেখার বই বাছাইকৃত ৬ এ ব্লগটি।

আমাদের সাইট থেকে আরও পড়ুন:

ফ্রিল্যান্সিং কোথায় শিখব?

ফ্রিল্যান্সিং আপিনি আনলাইন থেকে শিখে নিতে পারবেন, ইউটিইব থেকে বা কোনো প্রফেশনাল এর থেকে কোর্স করে। আর ভালো মানের কোর্স সম্পর্কে জানতে লেখাগুলো পড়ুন। আমরা সব ব্যাখ্যা সহ তুলে ধরেছি।

freelancer কি?

যারা ফ্রিল্যান্সিং করে তাদরে freelancer বলা হয়।

ফ্রিল্যান্সিং এর কাজ কি?

ফ্রিল্যান্সিং এর কাজ হলো নিজের বাছাই করা স্কিল অনুসারে বইয়ারে কাজ করে দেওয়া। যেমন আপনি একজন গ্রাফিক ডিজাইনার হলে বায়ার যুদি বলে আমার ছবিটির ব্যাকগ্রগাউন্ড রিমুভ করে দিন তবে আপনাকে সে কাজটি করে দিতে হবে। বিনিময়ে আপনি একটা ভালো অংকের টাকা পেয়ে যাবেন।

ফ্রিল্যান্সিং কাকে বলে

কম্পানির হয়ে কাজ না করা নিজের জন্য কাজ করাই হলো ফ্রিল্যান্সিং।

ফ্রিল্যান্সিং অর্থ কি?

ফ্রিল্যান্সিং এর সজ্ঞা হলো কোনো কম্পানির হয়ে কাজ না করা নিজের জন্য কাজ করা।

ফ্রিলান্সিং কেন করবো?

ফ্রিলান্সিং করার কারণ হলো বেকারত্ন নিরুপন। আপনার অন্য ইন্টেন্ট থাকলে বা আপনা জব থাকলে এটা আপনার জন্য না। আনেকে এটা শখে করে আবার অনেকে নিজের বেকারত্ব দুর করত এটা করে।

ফ্রিল্যান্সিং কিভাবে শিখবো?

আমাদের ব্লগটি পড়ে দেখুন আপনি জেনে যাবেন ফ্রিল্যান্সিং কি, ফ্রিল্যান্সিং কি ভাবে করতে হয়, আর ফ্রিল্যান্সিং কি ভাবে শিখতে হয় তার সব।

Featured